আমি ব্লগ লেখার খুব বেশি সমর্থক কোনওদিনও ছিলাম না, সত্যি কথা বলতে কি এখনও যে আছি তা নয় । তার একটা প্রধান কারণ আমার ধারণা ব্লগ লেখার থেকেও পড়া অনেক বেশি ক্লান্তিকর । অভিজ্ঞতা থেকে বলছি, অনেক সময়ই পড়তে শুরু করে শেষ করা হয়ে ওঠে না । নিজের ধৈর্য এবং/অথবা আগ্রহের অভাবকে 'ঠিক আছে, বাকিটা পরে পড়ব' জাতীয় অজুহাত দিয়ে ঢেকে দিই - আর আমরা সবাই জানি সেই 'পরে' টা আর কখনওই আসে না । তো, এই কারণে আমি ঠিক করেছি আমার ব্লগকে কখনওই অন্যের ক্লান্তির কারণ ঘটাব না, আমার ব্লগের বিষয় হবে প্রধানতঃ ভ্রমণ । আমার মতো যেসব বাঙালিরা ঘুরতে ভালোবাসে, তাদের জন্য আমার ব্লগ হবে তথ্যের একটা source । আমার নিজের একটা অভ্যেস আছে, কোনও জায়গায় বেড়াতে যাওয়ার আগে সেই জায়গাটা সম্পর্কে কিছুটা জেনে নেওয়ার চেষ্টা করি, আর internet ঘাঁটতে গিয়ে আমার বরাবরই মনে হয়েছে যে internet এ লেখালেখি করার ব্যাপারে বাঙালিদের থেকে কুঁড়ে খুব কম শিক্ষিত জাতই আছে । আমার মতো যেসব বাঙালিরা আছে, যারা internet এ কোনো একটা ইংরিজীতে লেখা দেখলেই না পড়ার চেষ্টা করে, তাদের জন্য আমার ব্লগ helpful হবে, এই বিশ্বাস নিয়ে শুরু করছি আমার ভ্রমণকাহিনী । আগেই বলে রাখি, আমি Statistics এর ছাত্র ছিলাম, তাই আমার ব্লগে তত্ত্বের থেকে তথ্যের দেখাই মিলবে বেশি ।

Tuesday, September 17, 2013

মুকুটমণিপুর ভ্রমণ

তুমি যদি কখনও 'মুকুটমণিপুর' যাওয়ার পরিকল্পনা কর আর সেটা তোমার আশেপাশের লোকজন জেনে ফেলে তাহলে তুমি সবচেয়ে বেশি যে কথাটা শুনবে তা হল "ও, মুকুটমণিপুর ! আমি সেই কোন্‌ ছোটবেলায় গেছি !" শুনে আপাতদৃষ্টিতে মনে হয় মুকুটমণিপুরে শুধু ছোটরাই যায় । কিন্তু আমি সেইসব লোকের মধ্যে পড়িনা - আমার 'সেই কোন্‌ ছোটবেলায়' মুকুটমণিপুর যাওয়া হয়নি । অন্যের মুখে এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের কথা শুনতে শুনতেই জায়গাটায় যাওয়ার ইচ্ছে তৈরি হওয়া আর সেই সুবাদেই বেরিয়ে পড়া - আমাদের বেড়ানোর মুকুটে আরেকটা মণি যোগ করার জন্য ।

১৫ই সেপ্টেম্বর, ২০১৩ রবিবার সকাল ছ'টা পঁচিশে সাঁত্রাগাছি স্টেশন থেকে 'রূপসী বাংলা এক্সপ্রেস' এ মুকুটমণিপুরের উদ্দেশ্যে রওনা হলাম আমি আর আমার স্ত্রী । (এখানে জানিয়ে রাখি, অনেকেরই ধারণা 'রূপসী বাংলা' 'ধৌলি'র সঙ্গে হাওড়া থেকে একসঙ্গে ছাড়ে, সেটা কিন্তু ঠিক নয় । রূপসী বাংলা ধরতে গেলে এখন সাঁত্রাগাছি থেকেই ধরতে হয়, হাওড়া থেকে ধরা যায় না ) মুকুটমণিপুরে ট্রেন যায় না,
বাঁকুড়া স্টেশন
সবথেকে কাছের রেলস্টেশন হল বাঁকুড়া । এখান থেকে মুকুটমণিপুর আরও ৫৫ কিলোমিটার । বাঁকুড়া স্টেশন থেকে মুকুটমণিপুর যাওয়ার জন্য গাড়ি ভাড়া করা যেতে পারে আর নাহলে আছে লোক্যাল বাস । বাঁকুড়া স্টেশন থেকে বাঁকুড়া বাসস্ট্যান্ডটা বেশ কিছুটা দূরে - এখানে যাওয়ার জন্য আমাদের আরেকটা বাস ধরতে হল । বাঁকুড়া বাসস্ট্যান্ড থেকে মুকুটমণিপুরের বাস সংখ্যায় খুবই কম তাই আমরা খাতড়ার বাস ধরলাম । এই বাস খুব সাধারণ ঝরঝরে মার্কা বাস । খাতড়া থেকে আরেকটা বাসে করে মুকুটমণিপুর । আমাদের টাইমিংগুলো হল - বাঁকুড়া স্টেশন সকাল ১০:১০ - বাঁকুড়া বাসস্ট্যান্ড সকাল ১০:৩০ - খাতড়ার বাস বেলা ১১ টা - খাতড়া দুপুর ১:৩০ - মুকুটমণিপুরের বাস দুপুর ১:৪৫ - মুকুটমণিপুর দুপুর ২:১৫ আর আমাদের হোটেল দুপুর ২:৩০ (এগুলো এত ডিটেলে লিখলাম একটাই কারণে - কলকাতা থেকে মুকুটমণিপুর যেতে হলে কেউ যেন ট্রেনে না যায় । এত কষ্ট করে না গিয়ে অনেক সহজে ধর্মতলা থেকে মুকুটমণিপুরের টানা বাসে যাওয়া যায় ।)

আমাদের বুকিং ছিল ওয়েস্ট বেঙ্গল ফরেস্ট ডেভেলপমেন্টের 'সোনাঝুরি রিসর্ট'এ । এটার বুকিং কলকাতা
অনন্তমূল কটেজ
অফিস থেকে সরাসরি করা যায় - অথবা ওদের ওয়েবসাইট থেকে অনলাইনও করা যায় । রিসর্টটা খুবই সুন্দর - একটা পাহাড়ের গায়ে গাছপালা ঘেরা বিরাট জায়গা জুড়ে আলাদা আলাদা কটেজ । 'শতমূল' আর 'অনন্তমূল' দু'টো পাশাপাশি কটেজ - এদের মধ্যে আমরা অনন্তমূল বুক করেছিলাম । ঘরটা বেশ বড় - মাঝখান জুড়ে রয়েছে একটা ৭ X ৭ সাইজের খাট । এছাড়া টিভি চেয়ার টেবিল ইত্যাদি । ঘরের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা দেখবার মতো ! মেঝেটা এত পরিষ্কার যে আমরা ঘরে খালি পায়ে হেঁটেছি । বাথরুমটাও বেশ বড় এবং পরিষ্কার । ঘরের
ঘরের ভেতর
বাইরে একটা ছোট ব্যালকনি রয়েছে সেখানে চেয়ার নিয়ে বসে থাকা যায় । সবমিলিয়ে ব্যবস্থা খুবই ইম্প্রেসিভ ।











আমাদের লাঞ্চের অর্ডার দেওয়া ছিল না - কিন্তু ওরা বলল ব্যবস্থা করে দেবে । সেইমতো
সোনাঝুরির ডাইনিং রুম
আমরা ঘরে এসে চানটান করে ফ্রেশ হয়ে নিলাম । তারপর গেলাম ডাইনিং রুমে । এখানে রুমে খাবার দেওয়ার খুব একটা প্রচলন নেই - সবাই ডাইনিং রুমেই খায় । ডাইনিং রুমে একসঙ্গে ১৬ জন বসে খেতে পারে । খাবার সবই মিল সিস্টেম । আমরা দুপুরে নিলাম মাছভাত । রান্না অত্যন্ত সুস্বাদু ! আমাদের মাথাপিছু পড়ল ৭৫ টাকা করে ।

খাওয়ার পরে ঘরে এসে কিছুক্ষণ রেস্ট নিলাম । বিকেলে বেরোলাম চারপাশটা একটু এক্সপ্লোর করতে । মুকুটমণিপুরের প্রধান আকর্ষণ হল ড্যাম - কংসাবতী নদীর জলকে বাঁধের সাহায্যে ধরে রেখে সেচের কাজে ব্যবহার করা হয় । এই ড্যামটা বিশাল বড় আর বলতে গেলে এটা দেখতেই এখানে আসা ।

মুকুটমণিপুরে কংসাবতীর ড্যাম
সোনাঝুরি থেকে ড্যাম হেঁটে মিনিট পনেরো লাগে । ড্যামের পাঁচিলের ওপর দিয়ে রাস্তা চলে গেছে । আমরা এই রাস্তা ধরে কিছুদূর হেঁটে গেলাম । এখানকার সৌন্দর্য অসাধারণ । একদিকে কংসাবতীর বিশাল ড্যাম আর অন্যদিকে পাহাড় আর ছোট ছোট গ্রাম । আমরা বেশ কিছু ছবি তুললাম ঠিকই, কিন্তু জায়গাটার ব্যাপ্তি এতটাই বড় যে ক্যামেরায় একে বন্দী করা সম্ভব না । (ওয়াইড অ্যাঙ্গেলেও না) পাঁচিলের ওপর দিয়ে রাস্তা অনেক দূরে (৭ কিলোমিটার) চলে গেছে । পুরোটা হেঁটে যাওয়ার প্রশ্ন ওঠে না আর আকাশে মেঘ করে ছিল - তাই হেঁটে খুব বেশি দূরে যাওয়ার সাহসও হল না । আস্তে আস্তে সন্ধ্যে হয়ে আসছিল আর পুরো জায়গাটায় আমরা ছাড়া আর লোকজনও বিশেষ ছিল না, তাই এবার ফেরার পথ ধরলাম । সোনাঝুরিতে যখন ফিরে এলাম তখন অন্ধকার হয়ে গেছে ।

সন্ধ্যেবেলা মুকুটমণিপুরে কিছু করার নেই । যতদূর সম্ভব সোনাঝুরিতে আমরা ছাড়া আর কোনও গেস্টও নেই কাজেই লোকজনের গলার শব্দও শোনা যাচ্ছিল না । ঘরের বাইরে শব্দ বলতে একমাত্র ঝিঁঝির ডাক । রিসর্টের বাইরে রাস্তা আছে, কিন্তু সেটা ঘর থেকে বেশি কিছুটা নিচে । আর সেই রাস্তা দিয়েও কদাচিৎ কখনও গাড়ি চলে । ফরে বাইরের আওয়াজও নেই । আমরা যারা কলকাতায় থাকি তারা এই নিস্তব্ধতার সঙ্গে পরিচিত নই । 'সাইলেন্স হ্যাজ ইট্‌স্‌ ওন ল্যাঙ্গুয়েজ' এই বিখ্যাত কথাটা মুকুটমণিপুরে গিয়ে আবার নতুন করে উপলব্ধি করলাম ।

রাতে চিকেন মিল বলা ছিল - শুধু ভাতের বদলে রুটি । মাংস ছাড়াও তরকারি, ডাল, আলুভাজা ইত্যাদি দেয় । খরচ পড়ল ৯০ টাকা করে ।

পরেরদিন অর্থাৎ ১৬ই সেপ্টেম্বর, ২০১৩ সোমবার । এই দিনটা আমাদের মুকুটমণিপুরের সাইট সিয়িং
অনন্তমূল কটেজ থেকে সোনাঝুরির কিছুটা
করার দিন । ঘোরার দু'রকম ব্যবস্থা আছে - অ্যাম্বাসাডর আর মোটর ভ্যান । মুকুটমণিপুরে সাইট সিয়িং এ খুব বেশি কিছু দেখার নেই - মোটরভ্যানে বড়োজোর ঘন্টা আড়াই লাগবে । অ্যাম্বাসাডরে গেলে সেটা আরও কমে যাবে । আর বাঁধের রাস্তা দিয়ে যখন যাব তখন অ্যাম্বাসাডরে গেলে সবদিক দেখতে দেখতে যাওয়া যাবে না । সেইসব কিছু মাথায় রেখে আমরা মোটর ভ্যানটাই বেছে নিলাম ।


কিন্তু বেছে নিয়েই কি বেরিয়ে পড়লাম ? না রে বাবা, বেরোলাম তো দশটার সময়ে । তার আগে সকালে কি কি হল, সেগুলো বলি ?

সকালে রিসর্টে ব্রেকফাস্ট করে নিলাম । পাঁউরুটি ডিমভাজা আর একটা মিস্টি মিলিয়ে পড়ল ৪০ টাকা করে । এখানে একটা মজার জিনিস বলি । প্রথমদিন ব্রেকফাস্টে পাঁউরুটি খেতে গিয়ে দেখলাম পাঁউরুটিতে জবজবে করে মাখন মাখানো । এত মাখন ? একটু অবাক লাগল । পরেরদিন ব্রেকফাস্টের সময়ে দেখতে পেলাম এত মাখনের কারণ কি । আমরা সাধারণতঃ মাখনের বার থেকে ছুরি বা চামচের সাহায্যে পাঁউরুটিতে মাখন মাখাই । আর ওরা গোটা বারটাকে নিয়েই পাঁউরুটিতে ঘষে ! আর সেইসঙ্গে পাঁউরুটি গরম থাকার হু হু করে মাখন অ্যাবসর্ব হয়ে যায় ! আর এই গোটা ব্যাপারটা ওরা পাঁউরুটির দু'পিঠে করে ! খেতে ভালো না হয়ে যায় কোথায় !

শাল-পিয়াল থেকে কংসাবতী ড্যাম
যাই হোক, ব্রেকফাস্টের পর সোনাঝুরির ভেতরে একটু ঘুরে বেড়ালাম । পাহাড়ের গায়ে গায়ে বিভিন্ন ধাপে আলাদা আলাদা করে একজোড়া কটেজ । তাদের নাম শাল-পিয়াল, তাল-তমাল (ইয়েস্‌ !) ইত্যাদি । এদের মধ্যে শাল-পিয়ালটা পাহাড়ের আরও কিছুটা ওপরে আর এখান থেকে ড্যামের অনেকটা দেখতে পাওয়া যায় । ওফ্‌, অসাধারণ ! সবমিলিয়ে জায়গাটা ওয়েল ডেকরেটেড, ওয়েল প্ল্যান্‌ড্‌, ওয়েল অর্গানাইজড্‌ অ্যান্ড ওয়েল মেইন্টেন্ড ! ওয়েল ... লেট্‌স্‌ স্টপ ইউজিং 'ওয়েল' ।


দশটার সময়ে বেরোলাম সাইট সিয়িং করতে । প্রথমে বাঁধের রাস্তার ওপর দিয়ে আমাদের নিয়ে গেল
বাঁধের ওপর থেকে গ্রামের দৃশ্য
মোহনার দিকে । যাওয়ার পথটা অসাধারণ - একটু রোদ্দুরের তেজ থাকলেও সেটা সেরকম গায়ে লাগছিল না । একদিকে বিপুল জলরাশি আর অন্যদিকে দিগন্তবিস্তৃত ধানক্ষেতের মাঝে মাঝে মাটির বাড়ি সম্বলিত গ্রাম - এ'জিনিসের সৌন্দর্য্য নিজের চোখে না দেখলে বলে বোঝানো সম্ভব নয় ।





পরেশনাথ পাহাড় থেকে
আমাদের প্রথম দাঁড়ানোর জায়গা পরেশনাথ পাহাড় । এখানে একটা ছোট্ট টিলার ওপরে একটা শিবলিঙ্গ আছে । টিলার ওপর থেকে বহুদূর পর্যন্ত চমৎকার দৃশ্য দেখতে পাওয়া যায় । আমরা এখানে দাঁড়িয়ে কিছু ছবি তুললাম ।








এরপরের গন্তব্য মোহনা । এই মোহনার বৈশিষ্ট্য হল এখানে কংসাবতী (বা কাঁসাই) এবং কুমারী দু'টো
কংসাবতী ও কুমারীর মোহনা
নদী একসঙ্গে মিলিত হয়েছে । এখান থেকে নৌকো চড়ে নদীর ওপারে যাওয়া যায় আর সেখান থেকে ডিয়ার পার্কে যাওয়া যায় । তবে লোকজনের মতে ডিয়ারপার্কে সেরকম কিছু দেখার নেই, তাই আমরা আর ও'পথ ধরলাম না । মোহনায় কিছুক্ষণ ঘোরাঘুরি করে চলে এলাম ।






তৃতীয় যাওয়ার জায়গা অম্বিকানগর । এই জায়গাটা বলতে গেলে আমাদের রিসর্টের পাহাড়ের পেছন দিকে -
গ্রাম ছাড়া ঐ রাঙা মাটির পথ
তাই বলতে গেলে আমরা এবার ফেরার রাস্তা ধরলাম । কিন্তু আমাদের ড্রাইভার কাম গাইড এবারে আর বাঁধের ওপর দিয়ে ফিরল না । তার বদলে বাঁধ থেকে গ্রামের পথে নেমে গিয়ে মেঠো পথে ফেরা হল । অর্থাৎ আসার পথে যেসব গ্রাম আর ধানজমি গুলো ওপর থেকে দেখছিলাম, এবার তাদের মধ্যে দিয়ে ফিরলাম । দু'ধারে ধানক্ষেত, ছোট ছোট জনবসতি, পুকুর ইত্যাদি । পথের দু'দিকে নানারকম গাছের শান্তশীতল ছায়া আর তার মাঝখান দিয়ে লালমাটির মেঠো পথটি দিয়ে আমরা এগিয়ে চলেছি আর এক অজানার উদ্দেশ্যে - এর অনুভূতিই আলাদা ! (এত কাব্য করছি কেন ? আসলে আমরা আছি বাঁকুড়ায় আর বাঁকুড়ার পাশেই বীরভূম আর বীরভুম মানেই শান্তিনিকেতন আর শান্তিনিকেতন মানেই রবীন্দ্রনাথ !)

অম্বিকানগর একটা টাউনশিপ - এখানে দেখার জায়গা বলতে একমাত্র অম্বিকাদেবীর মন্দির । রাস্তার
অম্বিকাদেবীর মন্দির
ধারে একটা ছোটখাটো মন্দির - সেরকম দূর্দান্ত কিছু নয় । চাইলে এখানে না যাওয়াও যেতে পারে ।












কংসাবতীর ব্যারেজ
এবার আবার মুকুটমণিপুরের রাস্তা ধরলাম । ফেরার পথে আমাদের রিসর্টের সামনের রাস্তা দিয়ে ফিরে এসে আরও কিছুটা এগিয়ে গিয়ে গেলাম ব্যারেজের কাছে । এই ব্যারেজের থেকেই জল ছাড়া হয় যেটা সেচের কাজে ব্যবহার করা হয় । এখন আপাতত লক্‌গেট বন্ধ । সেখানে কিছুক্ষণ ঘোরাঘুরি করে ফিরে এলাম রিসর্টে । এই ঘোরাঘুরির জন্য আমাদের খরচ পড়ল ২৩০ টাকা (অ্যাম্বাসাডরে পড়ত ৪০০ টাকা) ।


ফিরে এসে চানটান করে নিয়ে দুপুরের খাবার খেয়ে নিলাম । দুপুরে চিকেন মিল বলা ছিল । ভাত ডাল তরকারি আর চিকেন । এরপর ঘরে এসে কিছুক্ষণ রেস্ট নিয়ে চারটে নাগাদ আবার বেরিয়ে গেলাম ড্যামের ধারে । এবার আমাদের উদ্দেশ্য নৌকাবিহার !

নৌকো করে এখানে ড্যামের মধ্যে ঘোরা যায় । চাইলে নৌকো করে মোহনা পর্যন্তও ঘুরে আসা যায় ।
নৌভ্রমণের সময়ে
নৌকোর রেট হচ্ছে ২৫০ টাকা - মোটামুটি ১০ - ১২ জন আরাম্‌সে বসতে পারে । কিন্তু আগেই বলেছি আমরা ছাড়া আর কোনও ট্যুরিস্ট নেই, কাজেই পুরো নৌকোটা আমাদেরই ভাড়া করতে হল ২০০ টাকা দিয়ে । নৌকো জলের মধ্যে আধঘন্টা মতো ঘোরায় । (আর ডাঙায় একমিনিটও ঘোরায় না) একবার একেবারে ব্যারেজের কাছে নিয়ে গেল । বেশ ফুরফুর করে হাওয়া দিচ্ছিল । বিকেলের পড়ন্ত আলোয় এই নৌভ্রমণ বেশ সুন্দর একটা অভিজ্ঞতা ।

ড্যামের রাস্তার মুখে কিছু গিফ্‌ট্‌ আইটেমের দোকান আছে । সবমিলিয়ে দশ-বারোটা । জিনিসের দাম সস্তাই বলা যায় । বাঁকুড়ার প্রসিদ্ধ জিনিস হল বিষ্ণুপুরের বিখ্যাত মাটির ঘোড়া - তবে মাটির ঘোড়া নিয়ে আসা রিস্কি বলে কাঠের ঘোড়া কেনা হল ।

কংসাবতীর গতিপথ - ব্যারেজের বিপরীত দিকে
সন্ধ্যে হতে তখনো কিছুটা দেরি আছে , তাই আমরা আরেকবার ব্যারেজের দিকটা গেলাম । আসলে হাতে সময় আছে আর সেরকম কিছু করার নেই, তাই বলতে গেলে একই জায়গা দু'বার করে ঘুরলাম আর কিছুক্ষণ ঘোরাঘুরি করে ঘরে ফিরে এলাম ।







রাতে চিকেন মিল । খেয়েদেয়ে ঘরে চলে এলাম ।

১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৩ মঙ্গলবার । আমাদের ফেরার দিন । আমাদের ফেরার ট্রেন আবার সেই বাঁকুড়া থেকে । রিসর্টে খোঁজ নিয়ে জানলাম সকাল এগারোটা চল্লিশে একটা বাস আছে যেটা সরাসরি বাঁকুড়া যায় । কিন্তু ১৭ই সেপ্টেম্বর বিশ্বকর্ম্মা পুজো - কাজেই বাস চলবে কিনা জানা নেই । তাই ঝুঁকি না নিয়ে ৮০০ টাকায় একটা অ্যাম্বাসাডর ঠিক করা হল যেটা আমাদের একেবারে বাঁকুড়া স্টেশনে নামিয়ে দিয়ে আসবে । ঠিক হল আমরা সাড়ে এগারোটায় বেরোব ।

চানটান করে ব্যাগট্যাগ গুছিয়ে নিয়ে রেডি হয়ে নিয়ে একটা জায়গায় গেলাম যেটা আমাদের দেখা বাকি
হিল্‌টপ থেকে ড্যাম
ছিল । সেটা হচ্ছে সোনাঝুরির হিল্‌টপ । আগেই বলেছি সোনাঝুরি রিসর্টটা একটা পাহাড়ের গায়ে । এই পাহাড়ের মাথায় ওঠার একটা সিঁড়ি আছে । পাহাড়ের মাথায় যখন পৌঁছলাম তখন মুখ দিয়ে আপনাআপনিই বেরিয়ে পড়ল 'বাঃ !' সত্যিই, মুকুটমণিপুরে এসে এখানে না এলে পুরো ঘোরাটাই অসম্পূর্ণ থেকে যায় ! সামনে কিছুদূরে ড্যামের পাঁচিল আর তার ওপারে বহুদূরবিস্তৃত বিপুল জলরাশি । একটা বিরাট জায়গা একসঙ্গে দেখা যায় এই হিল্‌টপ থেকে । যারা মুকুটমণিপুরে গেছে তারা হয়তো আমার সঙ্গে একমত হবে যে এটাই মুকুটমণিপুরে শ্রেষ্ঠ পাওনা !

এবার ঘরে ফেরার পালা । স্টেশনে পোঁছলাম তখন সাড়ে বারোটা । স্টেশনসংলগ্ন একটা দোকানে ভাতটাত খেয়ে নেওয়া হল । (এটার আর ডিটেল দিচ্ছি না, কারণ খাবারের মান স্টেশনসংলগ্ন দোকানে যেরকম হয়, সেরকমই) আমাদের ট্রেন আরণ্যক এক্সপ্রেসের সময় দু'টো পঁয়তাল্লিশ - তাই স্টেশনে অপেক্ষা করলাম । ট্রেন এল নির্ধারিত সময়ের দশমিনিট পরে । পৌনে সাতটায় সাঁত্রাগাছি আর সেখান থেকে বাড়ি !

সারসংক্ষেপঃ
১. কলকাতা থেকে খুব কাছে দু'দিনের ঘোরার এবং রিল্যাক্স করার জন্য একটা আদর্শ জায়গা মুকুটমণিপুর । ট্রেনে যাওয়ার সুবিধে থাকলেও ধর্ম্মতলা থেকে বাসে যাওয়া অনেক সহজসাধ্য ।
২. মুকুটমণিপুরে অল্প কিছু হোটেল থাকলেও থাকার জন্য সবথেকে উপযোগী হল ওয়েস্ট বেঙ্গল ফরেস্ট ডেভেলপমেন্টের সোনাঝুরি রিসর্ট । বুকিং অফিস  ঃ 6A, Raja Subodh Mullick Square, 7th - Floor, Kolkata-700013 Phone No: 033-2237-0060/ 2237-0061/2225-8549. এছাড়া ওদের ওয়েবসাইট থেকেও সরাসরি বুকিং করা যেতে পারে ঃ http://www.wbfdc.com/.
৩. রিসর্টের খাওয়াদাওয়া অত্যন্ত ভালো এবং সস্তা । এদের রুমে খাবার দেওয়ার ব্যবস্থা নেই - ডাইনিং এ গিয়ে খেয়ে আসতে হয় ।
৪. এখানে সাইট সিয়িং এর জায়গা বলতে পরেশনাথ পাহাড়, মোহনা, অম্বিকানগর আর ব্যারেজ । সাইট সিয়িং এর জন্য মোটর ভ্যান পাওয়া যায় আর চাইলে রিসর্ট থেকে গাড়িরও ব্যবস্থা করা যেতে পারে ।
৫. কংসাবতী নদীতে নৌকো করে ঘোরা যেতে পারে । নৌভ্রমণের আদর্শ সময় বিকেলবেলা ।
৬. ড্যামে যাওয়ার রাস্তায় কিছু দোকান আছে - এখান থেকে টুকিটাকি জিনিস কেনা যেতে পারে ।
৭. মুকুটমণিপুরে যাওয়ার জন্য ৬ - ৮ জনের গ্রুপ হচ্ছে সবচেয়ে ভালো - সেক্ষেত্রে মাথাপিছু ভ্যান বা নৌকোভাড়াটা অনেক কমে যাবে ।

মুকুটমণিপুর
উপসংহারঃ
পাহাড় আর জলের সহাবস্থানই হল মুকুটমণিপুরের প্রধান আকর্ষণ । শহরের কোলাহল, দূষণ আর যান্ত্রিক পরিবেশ থেকে যেন অনেক দূরে একটা শান্ত নিরিবিলি জায়গায় অবস্থিত এই ভ্রমণকেন্দ্রটি । এখানে খুব বেশি মানুষও বাস করে না আর ট্যুরিজ্‌ম্‌ এদের প্রধান জীবিকাও নয় । তাই কেউ চাইলে নিজের মতো করে জায়গাটা উপভোগ করতে পারে । এখানে বেড়ানোর সব উপকরণই বর্তমান, শুধু নেই বেড়াতে গিয়ে নিয়মের বেড়াজাল । মুকুটমণিপুরের আকর্ষণ থেকে এ'কথা বলাই যায় যে - প্রকৃতিপ্রেমী এবং ভ্রমণপিপাসু মানুষদের দু'ভাগে ভাগ করা যায় । এক, যারা মুকুটমণিপুরে গেছে আর দু'ই যারা মুকুটমণিপুরে যাবে !

মুকুটমণিপুরের আরও ছবি দেখতে হলে click here:

3 comments:

  1. Darun hoiche...:) ar Khub informatic o.

    ReplyDelete
  2. Tomar blog borabor e interesting r informative,tai ai niye notun kore r kichhu bolar nei. :) kintu jeta amar sob cheye bhalo laglo seta holo, ager bar Shilong blog a je byapartar proti ami tomar drishti akorshon korechhilam sei byapare tumi amay nirash koroni,byaparta proti jothesto jotno niyechho :) amar motamot k ato ta gurutto dewar jonno thanx.. :D I'm feeling honoured :D r ai lekha te jeta notice korlam seta holo,tomar nijossyo touch a besh kichhu hasyo rasatmak comments :D khub e monorom! tomar lekhar style k r o beshi samridho korechhe. tomar lekha sobsomay perfect :) bhul dhorar dhrishtota ami korbo na... :D anek bok bok kore phellam... :D

    ReplyDelete
  3. dear sir ,, apnar tola Mukutmanipur er photo gulo darun hoyeche....nice photography with nice concept....amar Bankura District e bari and Mukutmanipurer khub samney bari....Bankura District er most popular facebook page er ami admin....apnar tola koto gulo Mukutmanipur er photos amader Bankura District er page e dichhi....and thank you veru much :) abar asben Mukutmanipur....aro notun kore sajano hoye6e apnar pochonder Mukutmanipur ke :) Facebook Page Link : https://www.facebook.com/bankura.ranga.matir.desh

    ReplyDelete