আমি ব্লগ লেখার খুব বেশি সমর্থক কোনওদিনও ছিলাম না, সত্যি কথা বলতে কি এখনও যে আছি তা নয় । তার একটা প্রধান কারণ আমার ধারণা ব্লগ লেখার থেকেও পড়া অনেক বেশি ক্লান্তিকর । অভিজ্ঞতা থেকে বলছি, অনেক সময়ই পড়তে শুরু করে শেষ করা হয়ে ওঠে না । নিজের ধৈর্য এবং/অথবা আগ্রহের অভাবকে 'ঠিক আছে, বাকিটা পরে পড়ব' জাতীয় অজুহাত দিয়ে ঢেকে দিই - আর আমরা সবাই জানি সেই 'পরে' টা আর কখনওই আসে না । তো, এই কারণে আমি ঠিক করেছি আমার ব্লগকে কখনওই অন্যের ক্লান্তির কারণ ঘটাব না, আমার ব্লগের বিষয় হবে প্রধানতঃ ভ্রমণ । আমার মতো যেসব বাঙালিরা ঘুরতে ভালোবাসে, তাদের জন্য আমার ব্লগ হবে তথ্যের একটা source । আমার নিজের একটা অভ্যেস আছে, কোনও জায়গায় বেড়াতে যাওয়ার আগে সেই জায়গাটা সম্পর্কে কিছুটা জেনে নেওয়ার চেষ্টা করি, আর internet ঘাঁটতে গিয়ে আমার বরাবরই মনে হয়েছে যে internet এ লেখালেখি করার ব্যাপারে বাঙালিদের থেকে কুঁড়ে খুব কম শিক্ষিত জাতই আছে । আমার মতো যেসব বাঙালিরা আছে, যারা internet এ কোনো একটা ইংরিজীতে লেখা দেখলেই না পড়ার চেষ্টা করে, তাদের জন্য আমার ব্লগ helpful হবে, এই বিশ্বাস নিয়ে শুরু করছি আমার ভ্রমণকাহিনী । আগেই বলে রাখি, আমি Statistics এর ছাত্র ছিলাম, তাই আমার ব্লগে তত্ত্বের থেকে তথ্যের দেখাই মিলবে বেশি ।

Sunday, April 16, 2017

বারকুল (চিল্কা) ভ্রমণ

ভ্রমণপথঃ

বৃহস্পতিবার ১৩ই এপ্রিল, ২০১৭ঃ হাওড়া - রাত ১১ঃ৩০ মিনিটে অমরাবতী এক্সপ্রেস
শুক্রবার ১৪ই এপ্রিল, ২০১৭ঃ সকাল ৬ঃ১০ মিনিট - ভুবনেশ্বর - সকাল ৭ঃ১০ মিনিটের ভুবনেশ্বর-ভিশাখাপত্তনম ইন্টারসিটি এক্সপ্রেস - সকাল ৯ টা - বালুগাঁও - বারকুল । বারকুল - গোপালপুর - বারকুল । বারকুলে রাত্রিবাস ।
শনিবার ১৫ই এপ্রিল, ২০১৭ঃ বারকুলে জলপথে ভ্রমণ - বারকুলে রাত্রিবাস ।
রবিবার ১৬ই এপ্রিল, ২০১৭ঃ বারকুল - বালুগাঁও - সকাল ৮ঃ৪৯ মিনিটের ফলকনামা এক্সপ্রেস - বিকেল ৬ঃ২০ মিনিট - হাওড়া

ভারতবর্ষের ম্যাপ আঁকার সময়ে উড়িষ্যার এক জায়গায় একটা ছোট্ট জলাশয়ের খাঁজ দিতে হয়, মনে আছে ? (এটা না দিলে ভুল হয় না, তবে দিলে শিক্ষক-শিক্ষিকারা বেশি পছন্দ করেন ।) জায়গাটার নাম চিল্কা । ভারতবর্ষের বৃহত্তম আর পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম উপহ্রদ । লেকটা সুবিশাল, তার মধ্যে দু'টো জায়গায় দু'টো ট্যুরিস্ট স্পট আছে - রম্ভা আর বারকুল । এদের মধ্যে বারকুলে ১৪২৩ আর ১৪২৪ বাংলা বছরের সন্ধিক্ষণে সপ্তাহান্তে  দু'দিন কাটানোর অভিজ্ঞতা আমার ব্লগের এবারের বিষয় ।

ট্রেনে বালুগাঁও যাওয়ার পথে
আমাদের এবারের দল রাজগীর-এর অপরিবর্তিত দল । বারকুল যাওয়ার জন্য বালুগাঁওতে নামতে হয় আর হাওড়া থেকে বালুগাঁও যাওয়ার জন্য একাধিক ট্রেন রয়েছে । সবথেকে ভালো ট্রেন হল চেন্নাই মেল কিন্তু টিকিট না পাওয়ার জন্য আমরা ব্রেকজার্নি করতে বাধ্য হলাম । ১৩ই এপ্রিল, ২০১৭ বৃহস্পতিবার রাত ১১ঃ৩০ মিনিটের অমরাবতী এক্সপ্রেস ধরে আমরা পরেরদিন সকাল ৬ঃ১০ মিনিটে ভুবনেশ্বর নামলাম । সেখান থেকে সকাল ৭ঃ১০ মিনিটের ইন্টারসিটি এক্সপ্রেস ধরে সকাল ৯ টায় বালুগাঁও । এই ভুবনেশ্বর থেকে বালুগাঁও যাওয়ার সময়ে প্রাকৃতিক দৃশ্য খুব সুন্দর । মাঝে মাঝেই ছোট ছোট পাহাড় - সেগুলোকে পাহাড় না বলে টিলা বলাই ভাল । এর মাঝখান দিয়ে ট্রেন ছুটে চলেছে । এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি হওয়া সত্ত্বেও গরম সেরকম লাগছিল না, একটা আরামদায়ক হাওয়া সারাক্ষণই পাওয়া যাচ্ছিল ।

বালুগাঁও স্টেশন থেকে বারকুল যাওয়ার জন্য চাইলে ও টি ডি সি (ওড়িশা ট্যুরিজম ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন) থেকে গাড়ি বুক করে রাখা যায় । সেটা না করতে চাইলে শুধুমাত্র অটোই ভরসা । স্টেশন থেকে বারকুলের দূরত্ব ৭ কিলোমিটার মতো আর অটোয় যেতে মিনিট কুড়ির বেশি লাগে না । আমরা দু'টো অটো ধরে পৌঁছে গেলাম বারকুল পান্থনিবাসে ।

ব্যালকনি থেকে চিল্কা
এর আগে চাঁদিপুরে আমরা ও টি ডি সি-তে ছিলাম আর এবারে বারকুলে । জায়গাটা একটা বিশাল চত্বর আর তার মাঝে মাঝে কয়েকটা দোতলা বিল্ডিং । ট্যুরিজমের ব্যাপারে উড়িষ্যা সরকার বিশেষ যত্নবান এটা আগেও দেখেছি - এই রাজ্যের অর্থনীতির অন্যতম প্রধান ভিত্তিই হল ট্যুরিজম । একটা বিল্ডিং-এর দোতলায় পাশাপাশি তিনটে ঘরে আমরা আর কঙ্কনাদিরা থাকলাম । কিছুটা দূরে একটা এ সি কটেজে সমীরণদারা । আমাদের ঘরগুলো সবই লেকের সামনে - প্রত্যেকটা ঘরের সঙ্গেই লাগোয়া ব্যালকনি আছে যেখানে বসে লেকের দৃশ্য উপভোগ করা যায় (দাঁড়িয়েও করা যায়, যেহেতু উপভোগের সঙ্গে আরামের সরাসরি সম্পর্ক আছে তাই বসলে বেশী ভালো লাগে !) । আমরা ঘরে ঢুকে একটু হাতমুখ ধুয়ে চলে গেলাম ডাইনিং হলে ।

চত্বরের মধ্যেই একটা সুবিশাল ডাইনিং হল । ভেতরটা এ সি । এখানে একসঙ্গে অন্ততঃ ৫০ - ৬০ জন বসে খেতে পারে । এখানে ঘরের চার্জের সঙ্গে ব্রেকফাস্ট কমপ্লিমেন্টারি, যদিও প্রথমদিনের ব্রেকফাস্টটা আমরা কমপ্লিমেন্টারি নিলাম না, সেটা আমরা রেখে দিলাম ফেরার দিনের জন্য ।
(অঙ্কটা বোঝা যাচ্ছে না ? বুঝিয়ে দিচ্ছি । আমরা থাকছি দু'দিন । সেই হিসেবে আমাদের দু'টো ব্রেকফাস্ট কমপ্লিমেন্টারি হয় । আমরা প্রথমদিন নিলাম না, দ্বিতীয়দিন একটা আর তৃতীয়দিন সকালে আমরা যখন চেক্‌আউট করব, তখন আরেকটা নিয়ে নেব ।)
ব্রেকফাস্টে আমরা পাঁউরুটি-ডিমসেদ্ধ-কলা আর পুরী-সবজি নিলাম । এখানকার রান্না বেশ ভালো আর খিদেও পেয়েছিল, তাই গপাগপ খেয়ে ফেললাম !

পান্থনিবাসের ভেতরে
ঘরে ফিরে এসে চানটান করে নিলাম । এখানে ঘরে বসে এমনিই সময় কেটে যায় আর আমাদের সঙ্গে ছোটো বাচ্চা থাকায় আমাদের সময় কাটানোর কোনও সমস্যা হয় না (সত্যি বলতে কি, আমাদের মাঝে মাঝে সময়ের অভাবই হয় !) । দুপুরে দু'টো নাগাদ খেতে গেলাম । এখানে একধরনের মাছ পাওয়া যায় - নাম খাইঙ্গা । এটা এই অঞ্চলেরই মাছ, এখানেই লেক থেকে জেলেরা ধরে । একপ্লেটের দাম একপ্লেট পোনা মাছের দ্বিগুণ । আমরা একপ্লেট নিলাম টেস্ট করার জন্য । খেতে অনেকটা ভেটকি মাঝের মতো, তবে ভেটকির মতো অত সুস্বাদু নয় । ভাত, ডাল, আলুভাজা, মাছ আর চিংড়ি নিয়ে আমাদের ন'জনের মোট খরচ পড়ল ২,১৪৫/- টাকা ।

গোপালপুর যাওয়ার পথে
দুপুরে ঘরে বসে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিলাম । বিকেল ৪ টের সময়ে একটা বোলেরো নিয়ে বেরিয়ে পড়া হল গোপালপুরের উদ্দেশ্যে । একটা বোলেরোতে ন'জন ধরা আক্ষরিক অর্থেই 'বেশ চাপের' কিন্ত কথায় বলে "যদি হও সুজন/বোলেরোতে ন'জন" - তাই কষ্টেসৃষ্টে আমরা বসে পড়লাম । বারকুল থেকে গোপালপুরের দুরত্ব ৭৫ কিলোমিটার হলেও যেতে ঘন্টা দেড়েকের বেশি লাগল না তার প্রধান কারণ হল রাস্তাটা দুর্দান্ত । একেবারে মাখনের মতো সুন্দর রাস্তা তাই গাড়িতে বসে বোঝাই যাচ্ছিল না যে মাঝে মাঝে গাড়ির গতি ঘন্টায় ১০০ কিলোমিটারেরও বেশি হয়ে যাচ্ছে । রাস্তার দৃশ্যও খুব সুন্দর - একজায়গায় রাস্তাটা একটা পাহাড়ের গা দিয়ে কিছুটা গেছে । সেখান থেকে চিল্কা লেকের দৃশ্য খুব সুন্দর । এখানে আমরা মিনিট দশেক দাঁড়িয়ে ছবিটবি তুললাম ।

গোপালপুর সি-বিচ্‌
গোপালপুর মানে 'গোপালপুর অন্‌ সি' (কেন যে গোপালপুরকে 'গোপালপুর অন্‌ সি' বলা হয় আমি কখনও বুঝিনি । সমুদ্রের ধারের যেকোনও জায়গাই তো অন্‌ সি । কিন্তু পুরী অন্‌ সি বা দীঘা অন্‌ সি কখনও বলা হয় না, শুধুমাত্র গোপালপুরই অন্‌ সি ।) । গোপালপুরের বিচটা খুব সুন্দর । আমরা যখন পৌঁছেছি, তখন সবেমাত্র সূর্য্যাস্ত হয়েছে । আকাশ আর সমুদ্রের মধ্যে চলেছে রঙের আদানপ্রদান । আবহাওয়া খুবই আরামদায়ক - একটা সুন্দর হাওয়া দিচ্ছিল । গরম একেবারেই লাগছিল না । আমরা কিছুক্ষণ জলে পা-টা দিয়ে পাড়ে এসে বসলাম । বাঁধানো পাড়ে সুন্দর বসার জায়গা করা আছে । এখানে বসে বসে ঘন্টার পর ঘন্টা সমুদ্রের দিকে তাকিয়ে কাটিয়ে দেওয়া যায় । আমরা অবশ্য অতঘন্টা বসিনি, কিছুক্ষণ বসার পরে ওখান থেকে উঠে এসে একটা দোকান থেকে চিকেন পকোড়া খেয়ে নেওয়া হল । খরচ হল ৩০০/- টাকা ।

৭ টা নাগাদ আমরা ফেরার পথ ধরলাম । ফেরার জন্য সময় বেশি লাগল কারণ রাত্রিবেলা অত জোরে গাড়ি চালানো যায় না, চালানো উচিৎও নয় । বারকুল পান্থনিবাসে পৌঁছতে আমাদের প্রায় ন'টা বেজে গেল । গোপালপুর যাতায়াতের জন্য গাড়ি নিল ২,৫০০/- টাকা । দশটা নাগাদ আমরা ডাইনিং হলে গেলাম । রাতের মেনু ছিল রুটি আর চিকেন কারি । খরচ হল ১,১৯৭/- টাকা ।

লেকের ওপরে সূর্য্যোদয়
১৫ই এপ্রিল, ২০১৭ শনিবার - বাংলা নববর্ষ । সকালে যখন উঠলাম তখন সবে সূর্য্যোদয় হয়েছে । আমাদের ঘরগুলো থেকে খুব সুন্দর সূর্য্যোদয় দেখা যায় । একেবারে লেকের জলের ওপর থেকে সূর্য্য ওঠে । কিছুক্ষণ পরে আমরা ডাইনিং রুমে গেলাম ব্রেকফাস্ট করতে । মেনু আগের দিনের মতোই - এখানে এই মেনুই প্রতিদিন হয় । ব্রেকফাস্ট করে সকাল ৯ টার সময়ে আমরা বেরোলাম জলবিহারে । ও টি ডি সি থেকে বোটে করে বিভিন্ন দ্বীপে যাওয়ার ব্যবস্থা আছে । সেরকমই একটা বোট আমরা ভাড়া করেছিলাম । বোটে ২০ জনের বসার জায়গা আছে । মাথাটা পুরোটাই ছাউনি দেওয়া । বোটে চড়ার জন্য ও টি ডি সি-র নিজস্ব জেটির মতো আছে । সেখান থেকে বোটে চড়ে আমরা রওনা দিলাম 'কালিজাই দ্বীপ'-এর দিকে । চিল্কায় একটা জায়গা আছে যেখানে গেলে ডলফিন দেখতে পাওয়া যায় (মানে গেলে দেখতে পাওয়া যাবেই এরকম কোনও কথা নেই - অনেকটা সুন্দরবনে গিয়ে বাঘ দেখতে পাওয়ার মতো । না, ভুল লিখলাম । হয়তো এতটা অনিশ্চিতও নয় ।) । কিন্তু আমরা গেলাম না কারণ এখন গ্রীষ্মকাল আর এই সময়ে নাকি ডলফিন সেভাবে দেখা যায় না ।

আমাদের বোটে আমরা সবাই
আমাদের এই জলপথে ভ্রমণটা খুবই সুন্দর । চিল্কার সঙ্গে সমুদ্রের যোগাযোগ আছে আর যেহেতু এর পরিসর সুবিশাল তাই এখানে ঢেউও আছে । তারই মধ্যে আমাদের বোট এগিয়ে চলল । রোদের তেজ বেশ বেশি হলেও জলের মধ্যে সেরকম গরম লাগে না - একটা ঠান্ডা হাওয়া বইতে থাকে । আমাদের এই জলপথে ভ্রমণটা আমাদের মহারাষ্ট্র ভ্রমণ-এর মতো - যেদিন আমরা লঞ্চে করে মুম্বই থেকে এলিফ্যান্টা গেছিলাম ।  পার্থক্য হল সেদিন লঞ্চে আমাদের দল ছাড়াও আরও লোক ছিল আর এবারে শুধু আমরাই ।

কালিজাই মন্দিরের সামনে
প্রায় ৪৫ মিনিট চলার পর আমরা পৌঁছলাম কালিজাই দ্বীপ-এ । এখানে একটা কালিজাই দেবীর মন্দির আছে । দ্বীপটা সবমিলিয়ে খুব একটা বড় না, পুরোটা হেঁটে ঘুরতে বড়জোর ঘন্টাখানেক লাগে । আর সত্যি কথা বলতে কি ঘুরে দেখার মতো সেরকম কিছু নেইও । দ্বীপের মধ্যে একটা ছোট্ট টিলা আছে আর এর ওপরে একটা ছাউনি দেওয়া জায়গা । আমরা সেই ছাউনিটার ওপরে উঠলাম । এটাই দ্বীপের সর্ব্বোচ্চ জায়গা । এখান থেকে অনেকদূর পর্যন্ত দেখা যায় । সেখানে কিছুক্ষণ কাটিয়ে নেমে এসে আমাদের মধ্যে কয়েকজন গেলাম দ্বীপটাকে একটা চক্কর দিতে । কিছুদূর গিয়েই বুঝতে পারলাম দেখার কিছুই নেই, ঝোপঝাড় গাছপালার মধ্যে একটা সিমেন্টের বাঁধানো পায়ে চলা পথ । সেটা দিয়ে দ্বীপের কিছুটা ঘুরে আমরা যেখানে বোট থেকে নেমেছিলাম, সেখানে ফিরে এলাম । ঘড়ি বলছে বেলা সাড়ে দশটা, আর তাই আমরা এবার ফেরার জন্য বোটে উঠে পড়লাম (না, আমরা কালিজাই মন্দিরে ঢুকিনি, পুজো দেবারও কোনও প্রশ্ন ওঠে না) ।

ফেরাটাও একই রকম তাই সেটার সম্পর্কে আর বিস্তারিত লিখছি না । ফেরার সময়েও একই সময় লাগল । বোট থেকে নেমে যখন পান্থনিবাসের দিকে যাচ্ছি, তখন গরমটা টের পাওয়া যাচ্ছিল । এখানে জানিয়ে রাখি চিল্কা হ্রদ হিসেবে সুবিশাল হলেও আদপে এটা একটা হ্রদই, তাই সমুদ্রের মতো সবসময়ে এখানে হাওয়া দেবে এরকম আশা করা ঠিক নয় । বিশেষ করে মাঝে মাঝে বেশ গুমোটই লাগে । তবে জলের ধারে জায়গা, তাই বাতাসে আর্দ্রতা বেশি, তাই গরমে গা পুড়ে যাওয়ার ব্যাপারটা নেই ।

ঘরে ফিরে এসে আবার সেই 'কিছু করার নেই' অর্থাৎ অনেক কিছু করার আছে । দুপুরে খেতে গেলাম দু'টো নাগাদ । মেনু প্রায় একই, তবে মাছের বদলে বেশ কয়েক প্লেট চিকেন নেওয়া হল বলে খরচ কিছুটা কম পড়ল - ১,৪১০/- টাকা । ঘরে ফিরে এসে কিছুক্ষণ বারান্দায় বসে আড্ডা মারলাম ।

ও টি ডি সি-র নিজস্ব ঘেরা জায়গায়
বিকেলে আমাদের আর আলাদা করে কোথাও যাওয়ার ছিল না, তাই পান্থনিবাসের সামনেই ও টি ডি সি-র যে জেটিটা আছে, সেখানে গেলাম । এখানে লেকের কিছুটা জায়গা ও টি ডি সি ঘিরে রেখেছে, সেই ঘেরা জায়গার পাঁচিলের ওপর দিয়ে চাইলে হেঁটে ঘোরা যায় । এখানে নির্দিষ্ট দূরে কয়েকটা বসার জায়গাও রয়েছে । আমরা যখন সেখানে গেলাম, তখন সবেমাত্র সূর্য্যাস্ত হয়েছে, পেছনের পাহাড়ের ওপর সেই দৃশ্য দেখতে ভারী সুন্দর লাগছিল । জায়গাটায় পর্য্যাপ্ত আলো আছে, তাই সন্ধ্যে পেরিয়ে গেলেও কোনও অসুবিধে নেই । আর সবথেকে বড় কথা জায়গাটা ও টি ডি সি-র এলাকার মধ্যে, তাই নিরাপত্তা নিয়েও কোনও সমস্যা নেই ।

এখান থেকে ফিরে এসে আমরা বেরোলাম পান্থনিবাসের বাইরে । কিছু দেখার নেই, তবে একটা বড় দলে সবাই মিলে একসঙ্গে হেঁটে ঘোরাঘুরি করতেও ভালোই লাগে, আর আমরা মাঝে মাঝে সেটাই করে থাকি । পান্থনিবাসের বাউন্ডারির বাইরেই কিছু দোকান আছে, সেখান বসে আমরা বাঁধাকপির পকোড়া, বড়া ইত্যাদি খেলাম । বাঁধাকপির পকোড়াটা বেশ নতুন ধরনের, খেয়ে একেবারেই বোঝা যায় না যে বাঁধাকপি দিয়ে তৈরি । এই দোকানেই আমাদের ডিনার অর্ডার দিয়ে ঘরে ফিরে এলাম । রাত ন'টা নাগাদ গিয়ে ডিনার নিয়ে আসা হল । বলা বাহুল্য, খরচ অনেক কম পড়ল । রুটি আর চিকেন নিয়ে খরচ হল ৮৯৯/- টাকা ।

১৬ই এপ্রিল, ২০১৭ - রবিবার সকালে ঘুম ভাঙল আগেরদিনের থেকেও আগে - তখনও অন্ধকার কাটেনি । এই অবস্থা থেকে আলো ফুটে সূর্য্যোদয় যতক্ষণে হয়, সেই পুরো সময়টা আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকতে খুব ভাল লাগে । আগেই বলেছি, এখানে জলের ওপর থেকে সূর্য্যোদয় দেখা যায় । বারান্দায় দাঁড়িয়ে সেই দৃশ্য উপভোগ করলাম ।

আমাদের ঘর
সকাল ৮ টা নাগাদ আমরা পান্থনিবাস থেকে চেক্‌আউট করে বেরিয়ে পড়লাম । আমাদের প্রাপ্য ব্রেকফাস্টটা আমরা প্যাক করে নিয়ে নিলাম । আমাদের ফেরার ট্রেন ফলকনামা এক্সপ্রেস বালুগাঁও থেকে সকাল ৮ঃ৪৯ মিনিটে । স্টেশনে আসতে মিনিট কুড়ির বেশি লাগে না । স্টেশনে এসে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পরেই ট্রেন এসে গেল । ফলকনামা একেবারে হাওড়া পর্যন্ত্য যায়, তাই ফেরার সময়ে আমাদের আর ব্রেকজার্নি করতে হবে না । আমাদের সঙ্গে কোনও লাঞ্চের ব্যবস্থা ছিল না, ট্রেনের প্যান্ট্রির খাবারই ভরসা । দুপুরে চিকেনভাত আর নিরামিষ ভাত নিয়ে ভাগাভাগি করে খাওয়া হল ।

ফলকনামার হাওড়া পৌঁছনোর নির্ধারিত সময় বিকেল ৫ঃ৪৫ মিনিট আর মাত্র আধঘন্টা দেরীতে আমরা পৌঁছে গেলাম । তারপর ট্যাক্সিতে বাড়ি !

সারসংক্ষেপঃ

১. কলকাতা থেকে ৯ ঘন্টার ট্রেনের দূরত্বে উড়িষ্যায় চিল্কা হ্রদ একটা বিখ্যাত বেড়ানোর জায়গা । চিল্কায় থাকার জায়গা মূলতঃ দু'টো - বারকুল আর রম্ভা ।
২. বারকুল আর রম্ভা দু'টো জায়গাতেই ও টি ডি সি-র পান্থনিবাস আছে । এদের ওয়েবসাইট https://visitodisha.org/Search-Hotel-List থেকে বুকিং করা যায় অথবা এদের কলকাতার অফিস 'উৎকল ভবন' থেকেও বুকিং করা যায় । উৎকল ভবনের ফোন নম্বর হল - (033)22493653.
৩. শুধুমাত্র বারকুল নয়, ও টি ডি সি-র যেকোনও পান্থনিবাসে প্রবীণ নাগরিকদের জন্য ১০% ছাড় আছে । যদি দলে কোনও প্রবীণ নাগরিক থাকেন তাহলে তাঁর নামে বুকিং করার সময়ে সেটা মাথায় রাখলে ভাল ।
৪. বারকুল পান্থনিবাসের চেক-আউটের সময় হল সকাল ৮ টা অর্থাৎ এদের সময়সীমা ৮ টা থেকে ৮ টা ।
৫. পান্থনিবাসের ঘরগুলো সবই লেকের দিকের । ঘরের ব্যালকনি থেকে লেকের দৃশ্য উপভোগ করা যায় ।
৬. প্রত্যেক ঘরের সঙ্গেই কমপ্লিমেন্টারি ব্রেকফাস্ট রয়েছে । এখানে খাবারের মান বেশ ভালো । এখানে একটা আলাদা ডাইনিং রুম আছে আবার চাইলে ঘরে আনিয়েও খাবার খাওয়া যেতে পারে ।
৭. এখানে বেড়ানোর জায়গা বলতে চিল্কা লেক । লেকে বোটিং করার ব্যবস্থা আছে, আর বোটে করে এখান থেকে কাছাকাছি কালিজাই দ্বীপে যাওয়া যায় ।
৮. বারকুল থেকে কালিজাই দ্বীপ বোটে যেতে ৪০ - ৪৫ মিনিট লাগে । এই দ্বীপে মুলতঃ একটা কালিমন্দির আছে । দ্বীপটা খুব একটা বড় নয়, পুরোটা হেঁটে ঘুরতে ঘন্টাখানেকের বেশি লাগার কথা নয় ।
৯. এখানে একটা জায়গা আছে যেখান থেকে ডলফিন দেখতে পাওয়া যায় । তবে গরমকালে দেখতে পাওয়ার সম্ভাবনা কম বলে আমরা আর এখানে যাইনি ।
১০. বারকুল থেকে চাইলে গোপালপুর যাওয়া যেতে পারে - দূরত্ব ৭৫ কিলোমিটার । গোপালপুরের আলাদা কোনও বৈশিষ্ট্য নেই - শুধুমাত্র একটা সী-বিচ্‌ ।
১১. গোপালপুর যাতায়াতের রাস্তাটা খুব সুন্দর । কিছুটা রাস্তা পাহাড়ের ওপর দিয়ে আর সেখান থেকে লেকের দৃশ্য দেখতে খুবই ভালো লাগে ।
১২. বছরের যেকোনও সময়েই বারকুল যাওয়া যেতে পারে । জলের ধারে হওয়ায় এখানকার তাপমাত্রায় বিশেষ পরিবর্তন দেখা যায় না ।

উপসংহারঃ

চিল্কা
প্রধানতঃ সমুদ্রভিত্তিক পর্যটনশিল্পভিত্তিক রাজ্য উড়িষ্যার একটা অন্যতম পর্যটনের জায়গা হল চিল্কা - যেটা সমুদ্রভিত্তিক নয় । আর চিল্কার এক দিকে বারকুলে পর্যটন শিল্প গড়ে উঠেছে । এখানে সমুদ্রের গর্জন নেই, রয়েছে লেকের নিস্তব্ধতা । এখানে জলের উচ্ছাস নেই, রয়েছে স্নিগ্ধতা । এখানকার জলে স্নান করা যায় না, শুধুই দেখে উপভোগ করত হয় । আর এগুলোই চিল্কার ইউ এস পি । এখানে কাছাকাছির মধ্যে দেখার আর কিছুই নেই কিন্তু তাতে কিছু যায় আসে না । আমাদের মতো যারা বেড়াতে গিয়ে 'ক'টা জায়গা দেখা হল' আঙুলের গাঁট গুণে সেই হিসেব করে না, তাদের জন্য চিল্কা একটা আকর্ষণীয় জায়গা । শান্ত, নিরিবিলি জায়গায় প্রকৃতির সৌন্দর্য্য উপভোগ করার জন্য চিল্কা । দৈনন্দিন একঘেয়ে রুটিনের বাইরে বেরিয়ে একটু স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলার জন্য চিল্কা । কম পুঁজি আর দিনতিনেকের ছুটি সম্বল করে বেড়ানোর মতো জায়গা হল চিল্কা । চিল্কা এমন একটা জায়গা যেখানে বারবার গেলেও একঘেয়ে লাগবে না । আর যারা কখনও যায়নি, তাদের ভালো লাগতে বাধ্য । এই ভালো লাগাটা অনুভব করার জন্য একবার ঘুরে আসতেই হবে - চিল্কা !

বারকুল ভ্রমণের আরও ছবি দেখতে হলে click here.

4 comments:

  1. অনেকদিন মনে হয় আপনার নতুন কোথাও ভ্রমন এ যাওয়া হচ্ছে না :p নতুন ব্লগ পাচ্ছি না :)

    ReplyDelete
    Replies
    1. নিয়মিত ব্লগ দেখার জনয় ধন্যবাদ । এই তো, জানুয়ারীতে রাজগীরের পরে এপ্রিলে চিল্কা হল । আবার হবে কিছুদিন পরে !

      Delete
  2. আপনার লেখাটা খুবই ভালো, দারুন।

    ReplyDelete